আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে খালেদা জিয়া এখন টেমস নদীর তীরে

0
112
https://www.noakhalitimes.com

কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি ::বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, খালেদা জিয়া আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে চলে গেলেন লন্ডনে টেমস নদীর তীরে। বিএনপির আন্দোলনের কথা শুনলে মানুষ বলে এ বছর না ঐ বছর, আন্দোলন হবে কোন বছর? বিএনপির আন্দোলন এখন ভ্যানেটি ব্যাগে। তিনি আগে দেশে ফিরে আসুক, তারপর দেখা যাবে। দুই ঈদ পার হয়ে গেলো, বিএনপি কোনো আন্দোলনে যেতে পারেনি। আগামীতে কি করবে তা দেশবাসীসহ আমরা দেখার অপেক্ষায় আছি।

আজ রবিবার দুপুর ১২টায় তার নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাটে শৈশবের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এ এইচ সি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৯৯০ থেকে ২০১৭ ব্যাচ এর প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনী ও শিক্ষক সম্মাননা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

বিএনপি নেত্রী তিনি খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যে আরও বলেন, সহায়ক সরকার সংবিধানেই আছে। শেখ হাসিনার সরকারই আগামী নির্বাচনে সহায়ক সরকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

তিনি ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আওয়ামী লীগের জন্মের পর থেকে চট্টগ্রাম বিভাগের কেউ দলের সাধারণ সম্পাদক হতে পারেনি। আমি অজপাড়া গাঁয়ের এই স্কুলের ছাত্র হয়ে এ পর্যায়ে এসেছি। আমি আশাকরি তোমরাও আমার চাইতে অনেক বড় পদে অধিষ্ঠিত হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করবে। যোগ্যতা অর্জনে লেখাপড়ার কোনো বিকল্প নেই।  

শুধু ছেলেরা নয় মেয়েদেরকেও এগিয়ে আসতে হবে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী একজন নারী হয়ে আজ সারা বিশ্বে প্রশংসিত। বাংলাদেশ আজ সারা বিশ্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। প্রধানমন্ত্রীর পৃষ্ঠপোষকতায় আমরা ক্রিকেট বিশ্বে সুনাম অর্জন করেছি। তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশের রাজনীতি অর্থনীতির এমনকি খেলাধুলার অবস্থানও পাল্টে যাবে। শিক্ষিত, মেধাবী ও আদর্শবান লোকজন রাজনীতিতে আসলে রাজনীতি নষ্ট হবে না। খারাপ লোকেরা রাজনীতিতে আসলে রাজনীতি নষ্ট হয়ে যাবে। তারা এমপি মন্ত্রী হলে আমাদের অসম্মান হবে।

তিনি তরুণদের উদ্দেশ্যে বলেন, তরুণরা অনিয়মের কাছে মাথা নত করে না, কারণ তরুণরা ঝলমলে সকালের সূর্য্য। সততাকে অন্তরে লালন করে জীবন সংগ্রাম করলে কখনও পরাজিত হবে না। তরুণ ও ছাত্র সমাজকে মাদক থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানান তিনি।  

মন্ত্রী মঞ্চে উপবিষ্ট হওয়ার সময়ে তার দুই শিক্ষককে দেখে নিজের আসন ছেড়ে দিয়ে তাদের বসিয়ে দিয়ে সম্মান প্রদর্শন করে বলেন এই শিক্ষকদের পাঠদানের কারনে আজকে আমি এ অবস্থায় এসেছি, তাদের দেখতে পেয়ে আমি আমার শৈশবে ফিরে গিয়ে স্কুলের অনেক স্মৃতি আজ মনে পড়ছে।

এর আগে, মন্ত্রী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করে ডাক্তার ও নার্সের অনুপস্থিতি ও সার্বিক পরিবেশ দেখে অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং সিভিল সার্জনকে কারণ দর্শানোর আদেশ দেন।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও পুনর্মিলনী কমিটির আহ্বায়ক আজম পাশা চৌধুরী রুমেলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরণ, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ নুরুল আমিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত, উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মী এবং বিদালয়ের শিক্ষার্থী, প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ।

এর আগে মন্ত্রী উপজেলার সবকটি ইউনিয়নের বিভিন্ন বাজারগুলোতে গিয়ে দলীয় নেতা-কর্মী এবং এলাকাবাসীর সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন এসময় মন্ত্রী রামপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলী আহাম্মদের কবর জেয়ারত করেন।
https://www.noakhalitimes.com

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে