এবার ময়মনসিংহে প্রধান শিক্ষকের পা ভেঙে দিলেন আ. লীগ নেতা

0
109

সারা বাংলা ডেস্ক :: ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের যশরা ইউনিয়নের শিবগঞ্জ বি. দাস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এসএম বদরুল হককে (৪৮) মারধর করে পা ভেঙে দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা।

 

গত বৃহস্পতিবার শিবগঞ্জ বাজারে এ হামলার পর তাকে গুরুতর অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

স্কুল কমিটির সভাপতি হতে না পেরে যশরা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে এ হামলা করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্কুল কমিটির অভিযোগ, কয়েকজন ছাত্রকে দিয়ে স্কুল থেকে প্রধান শিক্ষককে বাজারে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে মারধর করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে স্কুলের নবম ও দশম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের প্রস্তুতি সহায়ক পরীক্ষা চলছিল। এসময় কর্তব্যরত শিক্ষকরা আটজন শিক্ষার্থীর কাছে মোবাইল ফোন দেখতে পান। শিক্ষকরা ছাত্রদের কাছ থেকে পরীক্ষার সময়টুকুর জন্য মোবাইল ফোনগুলো নিয়ে নেন। কিন্তু এই আট শিক্ষার্থী তা মানতে পারেনি।

ক্ষুব্ধ হয়ে ওই শিক্ষার্থীরা স্কুল থেকে বের হয়ে শিবগঞ্জ বাজারে গিয়ে ইউপি মেম্বার আওয়ামী নেতা সাইফুল ইসলাম ও যশরা ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি সুমন মিয়ার কাছে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে মোবাইল নিয়ে নেয়ার অভিযোগ করেন। ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি সাইফুল ইসলাম আগে থেকেই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের প্রতি ক্ষুব্ধ ছিলেন। শিক্ষার্থীদের ‘কথিত অভিযোগ’ কাজে লাগিয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সাইফুল ইসলাম ও যুবলীগ নেতা সুমন মিয়ার নেতৃত্বে একদল যুবক স্কুলে যায়।

তারা স্কুলে গিয়ে প্রধান শিক্ষকের মোটরসাইকেল নিয়ে আসে। মোটরসাইকেলটি নিয়ে গিয়ে রাখা হয় শিবগঞ্জ বাজারে সাইফুল ইসলামের দোকানের পেছনে। এ ঘটনায় প্রধান শিক্ষক বদরুল হকসহ আরো কয়েকজন শিক্ষক মোটরসাইকেলটি আনতে সাইফুল ইসলামের কাছে যান।

এসময় সাইফুল ইসলাম ও সুমন মিয়ার নির্দেশে একদল যুবক প্রধান শিক্ষক বদরুল হককে বাঁশ দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। একপর্যায়ে তার একটি পা ভেঙে দেওয়া হয়। পরে সহকর্মী শিক্ষকের সঙ্গে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রধান শিক্ষককে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করায়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে