নোবিপ্রবিতে ছাত্র-আনসার সংঘর্ষে আহত ৫, চার ছাত্র বহিষ্কার

0
135
http://www.noakhalitimes.com

নোবিপ্রবি প্রতিবেদক :: নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ক্যাম্পাসে অবস্থানরত আনসার সদস্যদের সংঘর্ষ হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায়  বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটে। এতে ৪ শিক্ষার্থী ও এক আনসার সদস্য আহত হয়েছেন। 

এরা হচ্ছেন, ফার্মেসি বিভাগের ১০ম ব্যাচের শিক্ষার্থী রাজেন, ফুড এন্ড নিউট্রিশন বিভাগের ১২তম ব্যাচের কামরুল, এগ্রিকালচার বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিশির, ও একই বিভাগের ১১তম ব্যাচের তারেক। গুরুতর আহত অবস্থায় রাজেন ও আনসার ইসমাইলকে জেলা শহরের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় সাধারণ শিক্ষার্থী ও কর্তব্যরত আনসারদের মাঝে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এদিকে ঘটনার পর ৪ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।  

জানা যায়, রবিবার নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ১ম বর্ষের ভর্তি কার্যক্রম বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী ইদ্রিস অডিটোরিয়ামে শুরু হয়। নতুন শিক্ষার্থীদের ভর্তি কার্যক্রমে সহযোগীতার জন্য সিনিয়র শিক্ষার্থীরা প্রতি বছরের মত অডিটোরিয়ামে প্রবেশ করতে যান। এসময় দায়িত্বরত আনসাররা তাদেরকে বাধা দেন। এ নিয়ে শিক্ষার্থী-আনসারদের মধ্যে প্রথমে কথা কাটাকাটি থেকে হাতাহাতি, পরে সংঘর্ষে রূপ নেয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, কর্তব্যরত আনসার ইসমাইলের নেতৃত্বে একদল আনসার সিনিয়র শিক্ষার্থীদের ওপর প্রথমে লাঠিচার্জ এবং এলোপাথাড়ি পিটিয়ে ও বুট দিয়ে লাথি মেরে রক্তাক্ত করে। এসময় শিক্ষার্থীরাও আনসারদেরকে পাল্টা আক্রমণ করে। এতে আনসার ইসমাইল সামান্য আহত হয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের মাঝে চরম উত্তেজনা ও ক্ষোভ দেখা দেয়।  

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ইংরেজী বিভাগের অধ্যাপক মুশফিকুর রহমান বলেন, ভর্তি কার্যক্রম নিয়ে কিছু শিক্ষার্থীদের সাথে আনসারদের ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের আনসার ক্যাম্প কমান্ডার জামাল উদ্দিন মুঠোফোনে বলেন, ভর্তি কার্যক্রম চলাকালীন সময়ে কয়েকজন শিক্ষার্থী অবৈধভাবে ভেতরে প্রবেশ করতে গেলে কর্তব্যরত আনসাররা বাধা দেয়। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় শিক্ষার্থীরা ইসমাইল নামে এক আনসারকে ধরে নিয়ে বেদম প্রহার করে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ আবুল হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ভর্তি কার্যক্রম চলাকালীন সময়ে কিছু শিক্ষার্থী অডিটোরিয়ামের ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করলে আনসাররা বাধা দেয়। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে