নোয়াখালীতে স্ত্রী-সন্তান খুনের দায়ে স্বামীসহ দুইজনের ফাঁসি

0
120

নোয়াখালী সংবাদদাতা :: নোয়াখালীতে স্ত্রী-সন্তান খুনের দায়ে মোর্শেদ আলম (৩৭) ও রুবেল (২৯) নামে দুইজনের ফাঁসির রায় দিয়েছে জেলা ও দায়রা জজ আদালত। রবিবার বিকেলে নোয়াখালী জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রেজা তারিক আহমদ এ মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান করেন। একই সাথে দুইজনের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ৫ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ডাদেশও প্রদান করেন। এ সময় আসামি রুবেল আদালতের উপস্থিত থাকলেও নিহত রুমা আক্তারের স্বামী মোর্শেদ আলম পলাতক রয়েছে।

দণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে মোর্শেদ আলম লক্ষ্মীপুর জেলার সদর উপজেলার মুক্তারামপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে। সে নিহত রুমা আক্তারের স্বামী এবং শিশু আপনের (৩) বাবা। অপর দণ্ডপ্রাপ্ত রুবেল একই গ্রামের শুক্কুর মিয়ার ছেলে। সে মোর্শেদ আলমের বন্ধু।

সূত্র জানায়, পুলিশ তদন্ত শেষে ওই হত্যাকান্ডের সাথে মোর্শেদ ও রুবেলর সম্পৃক্ততার কথা উল্লেখ করে একই বছরের অক্টোবর মাসের ১০ তারিখ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। আদালত আসামী, পুলিশ ও সাক্ষীদের পরীক্ষা নিরিক্ষা শেষে আসামীদের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, বিগত ২০০৯ সালের ২৫ আগস্ট নোয়াখালীর গুডহিল হাসপাতালের (প্রাইভেট) একটি কেবিনে স্ত্রী রুমা আক্তার ও তিন বছরের সন্তান আপনকে হত্যা করে মোর্শেদ আলম। এ সময় তাকে সহযোগিতা করে তার বন্ধু রুবেল। দুইজনকে হত্যার পর হত্যাকারীরা পালিয়ে যায়। এ ঘনায় ওইদিন হাসপাতালের মালিক ডা. আবদুল হাই সুধারাম মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর পুলিশ দুইজন আসামীকে গ্রেফতার করলেও মোর্শেদ পুলিশি হেফাজত থেকে পালিয়ে যায়। তবে গ্রেফতারের পর থেকে জেল হাজতে ছিল অপর আসামী রুবেল।

স্ত্রী-সন্তান হত্যার দায়ে দুইজনের মৃত্যুদণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করেন রাষ্ট্র পক্ষের কৌঁসুলী এডভোকেট এটিএম মহিব উল্যাহ। আদালতে রাষ্ট্র পক্ষে  অংশগ্রহণ করেন সরকারি কৌঁসুলী এটিএম মহিব উল্যাহ এবং আসামী পক্ষে অংশ নেন বেলায়েত হোসেন জসিম।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে