কোম্পানীগঞ্জে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগ

0
111
https://www.noakhalitimes.com

কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি :: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে এক চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষিত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মুছাপুর ইউপির ৫নং ওয়ার্ডে। সে মুছাপুর ইউপির একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছাত্রী । এ ঘটনায় ২৭ জুলাই রাতে কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি মামলা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) তাজুল ইসলাম সূত্রে জানা যায়, ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ১০ জুলাই। ধর্ষিতা ছাত্রীর পরিবার ২৭ জুলাই রাতে মামলা দায়ের করেন। ওই ছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষা ২৮ জুলাই শনিবার সকালে সম্পন্ন করা হয়েছে। ধর্ষিতা ছাত্রীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মুছাপুর ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের একই এলাকার মুন্সির ছেলে বখাটে রমজান তার মেয়েকে প্রায় উত্তক্ত্য করতো। গত ১০ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে বসত ঘরের পিছনে খালাতো বোনের সাথে মুঠোফোনে কথা বলার সময় জোরপূর্বক বাবুল মেম্বারের প্রজেক্টের পাড়ে নিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়ের চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে ধর্ষক পালিয়ে যায়। ধর্ষিতার পরিবারের অভিযোগ সূত্রে আরও জানা যায়, এ ঘটনায় কথিত সালিশদার ধর্ষিতার পরিবারকে সামাজিক ভাবে বিচার করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে কালক্ষেপণ করে ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার ষড়যন্ত্র করে। এ সুযোগে সালিশদারদের সহযোগিতায় ধর্ষক রমজান এবং তার মা-বাবা, ভাই এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। সর্বশেষ অসহায় পরিবারটি নিরুপায় হয়ে থানায় মামলা দায়ের করে। এ বিষয়ে একাধিকবার সালিশদারের সাথে যোগাযোগ করে তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মুছাপুর ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হেদায়েত উল্যাহ মানিক এ বিষয়ে বলেন, ধর্ষিতার পরিবার ধর্ষণের বিষয়টি আমাকে মুঠোফোনে অবহিত করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) তাজুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। তদন্ত করে ধর্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে